আস্তিক্যবুদ্ধি - অগ্নিবীর

আস্তিক্যবুদ্ধি

Share This

 

 
 আমরা সবাই শ্রবণশক্তি যুক্ত ও শব্দকে শুনিও । কিন্তু কোন শব্দকে শুনি ? যা কিনা স্থূলরূপে বিদ্যমান । প্রকৃতির অভিপ্রায়রূপ শব্দকে আমরা শুনি না । কিংবা সামান্যভাবে সংকেত লাভ করলেও আমরা তার গূঢ় রহস্যকে অনুধাবন করতে পারি না । সকল শব্দ একত্রিত হয়ে যে মহাকালের স্তোত্রপাঠ করছে সেই নির্দেশনা আমরা উপলব্ধি করতে পারি না । প্রকৃতির কোলে আমরা জড়জাগতিক মোহে যে পরিবর্তন তাতেই আসক্ত হচ্ছি । কিন্তু এই যে সৃষ্টির কর্তা তার কর্মকে কি আমরা আদৌ জানতে পারছি ? সৃষ্টির রচনাশৈলীর অনবদ্য সুরের মূর্ছনার পেছনে অনন্ত যে অন্তস্তত্ত্ব রয়েছে তা সম্পর্কে আমরা অবগত নই । এজন্য পরমাত্মা এই মন্ত্রে জীবের প্রতি উপদেশ ও নির্দেশনা প্রদান করছেন -
 
मया॒ सोऽन्न॑मत्ति॒ यो वि॒पश्य॑ति॒ यः प्रा॒णति॒ य ईं॑ शृ॒णोत्यु॒क्तम्।
अ॑म॒न्तवो॒ मां त उप॑ क्षियन्ति श्रु॒धि श्रु॑त श्रु॒द्धेयं॑ ते वदामि ॥
ময়া সোঽন্নমত্তি যো বিপশ্যতি যঃ প্রাণতি য ঈং শৃণোত্যুক্তম্।
অমন্তবো মাং ত উপ ক্ষিয়ন্তি শ্রুধি শ্রুত শ্রুদ্ধেয়ং তে বদামি ॥
অথর্ববেদ ৪.৩০.৪
 
অনুবাদঃ (শ্রুত) হে শ্রবণ শক্তিসম্পন্ন মানব ! (শ্রুধি) তুমি শ্রবণ করো, (তে) তোমার জন্য (শ্রদ্ধেয়ম্) শ্রদ্ধাযোগ্য বিষয় (বদামি) আমি বলছি -(সঃ) সে (যঃ) যে (বি পশ্যতি) বিবিধ সৃষ্টিকে দেখে, (যঃ) যে (প্রাণতি) প্রাণ ধারণ করে, শ্বাসোচ্ছ্বাস নেয় (যঃ) যে (ঈম্) এই (উক্তম্) কথন (শৃণোতি) শ্রবণ করে সে (ময়া) আমার [পারমেশ্বরী মাতা] দ্বারা প্রদত্ত (অন্নম্, অত্তি) অন্নকেই ভক্ষণ করে; এবং (তে) সে (মা উপ) আমার আশ্রয়েই (ক্ষিয়ন্তি) নিবাস করে, তবুও সে (অমন্তবঃ) আমার সত্তাকে, বিদ্যমানতাকে, মানে না।
 

  • (১) হে শ্রবণশক্তিযুক্ত জীব ! শোনো, যদি তুমি এই দিব্য শক্তিকে শুনতে পারো । হৃদয়ে উপলব্ধি করো এই কলতানকে ।
  • (২) এই যে সংসারে নানা বস্তুকে তুমি দেখতে পাচ্ছো , প্রতিক্ষণে শ্বাস-প্রশ্বাস দ্বারা জীবিত রয়েছে , প্রকৃতির যে ছন্দময় ধ্বনি শুনতে পাচ্ছো - আমার দেওয়া আহারেই তুমি চর্ব-চোষ্য-লেহ্য-পেয় আস্বাদন করো ।
  • (৩) কিন্তু দেখেও যে অন্তর্দশন করে না , শুনেও কর্ণকুহর থেকে মস্তিষ্কে যার উপলব্ধি হয় না - আমাকে বুঝতে পারে না তোমরা স্বয়ং বিচার করো -
  • (৪) যারা আমাকে সত্ত্বাকে স্বীকার করে না তারাও কি আমার আশ্রয়ের বাইরে অবস্থান করছে ? তারা 'অমন্তুবঃ' = মনন করে না । যদি মনন করো তবে সর্বত্রই আমার অস্তিত্ব উপলব্ধি করবে ।
পরমাত্মা তো জগতপিতা - জগন্মাতা । তারা আশ্রয়েই সবাই । কেউ তাকে স্বীকার করুক বা নাইই বা করুক । আমাদের উচিৎ স্বীয় কর্ম সবই ভগবানের উদ্দেশ্যে করে বেদকে পাথেয় করে অভ্যুদয় ও নিঃশ্রেয়স লাভ করা ।
 
বাংলাদেশ অগ্নিবীর

No comments:

Post a Comment

Pages