একজন ঈশ্বরভক্ত ব্যক্তির সামাজিক জীবন কেমন হবে ? - অগ্নিবীর

একজন ঈশ্বরভক্ত ব্যক্তির সামাজিক জীবন কেমন হবে ?

Share This

 


💢 একজন ঈশ্বরভক্ত বৈদিক ব্যক্তির
সামাজিক জীবন কেমন হবে তা পরমেশ্বর উপদেশ প্রদান করছেন পবিত্র সামবেদের একটি মন্ত্রে -
💢
কো অদ্য য়ুঙ্ক্তে ধুরি গা ঋতস্য শিমীবততা ভামিনাে দুর্হৃণায়ূন্ ।
আসন্নেষামপ্সুবাহাে ময়োভূন্য এষাং ভৃত্যামৃণধৎস জীবাৎ ll
(সামবেদ -৩৪১)
 
পদার্থ ও ব্যাখ্যাঃ - জীবাত্মা পক্ষে
 
কোনো ব্যক্তি নিজেকে কেবল পরিবারে সীমিত রাখতে পারে না l তাকে সমাজবদ্ধ হতেই হয় l এই মানবের সামাজিক জীবন কেমন হবে তা পরমেশ্বর উপদেশ প্রদান করছেন( মন্ত্রটির প্রতিটি শব্দের বিশ্লেষণ করা হলো) -
 
১. (কঃ) প্রজাপতি (অদ্য) আজ (ধুরি) অগ্রভাগে (য়ুঙ্ক্তে) একে নিযুক্ত করেন l উপাসক নিজেকে পরমেশ্বরের সখা করেছে আর প্রভু তাকে প্রেরণা দান করে এই অগ্রভাগে নিযুক্ত করেছে সামাজিক হিতকর্মে সে সর্বদা অগ্রসর থাকে l
২. (ঋতস্য গাঃ) = (য়ুঙ্ক্তে) = প্রভু তাকে সত্যবাণীর সাথে যুক্ত করে l এইরূপ উপাসক কখনোই অসত্যের দিকে অগ্রসর বা সম্পৃক্ত হন না l প্রিয় সত্যেরই উচ্চারণ করে l
৩. (শিমীবতঃ) কর্মাচরণে শান্ত থাকে l ধীরস্থিরভাবে প্রতিটি কর্ম সম্পাদন করে l
৪. (ভামিনঃ) সে তেজস্বী হয় l
৫. (দুর্হৃণায়ূন্) মন্দ কাজ বা বিষয়ে লজ্জা অনুভব করে l
৬. (এষাম্) প্রভু এই উপাসকের (আসন্) মুখে (য়ুঙ্ক্তে) সেই বাণীসমূহকে যুক্ত করেন যা (অপ্সুবাহঃ) তাদের কর্মে পরিচালিত করে এবং (ময়োভুন্) কল্যাণ উৎপন্ন করে l
অর্থাৎ, উপাসকের বাণী কখনোই কাউকে দুঃখী করার জন্য উচ্চারিত হয় না , তা ক্রিয়াশীল ও কল্যাণকারী হয়ে থাকে l 
 
এই রকম জীবনযুক্ত মানব সমাজের জন্য হিতকারী হয়, (য়ঃ) যে (এষাম্) এই মানবজাতির (ভৃত্যাম্) অনুগত হয় , তাদের বাণী ও কর্মের অনুগমন করে, আনুগত্য (ঋণধৎ) প্রাপ্ত হয় , ( সঃ জীবাৎ ) তারাই জীবন অতিবাহিত করে l
 
 

 
 
অর্থাৎ জীবন তাদেরই সফল হয় , যারা এইরকম মানবের পদাঙ্ক অনুসরণ করে সফল হয় l
পবিত্র বেদ মানব জীবনের সংবিধানস্বরূপ ।
 
❤️
ওঁ শান্তি শান্তি শান্তি
বাংলাদেশ অগ্নিবীর

No comments:

Post a Comment

Pages