উপনয়ন সংস্কারের আগে ও পরে পালনীয় নিয়ম কী কী ? - অগ্নিবীর

উপনয়ন সংস্কারের আগে ও পরে পালনীয় নিয়ম কী কী ?

Share This

 

✅ উপনয়নের পূর্বে পালনীয় বিধি

১। উপনয়নের ৩ দিন বা ১ দিন আগে ব্রতপালন করতে হবে ।
২। উক্ত ব্রত পালনের সময় আহার্য হবে সম্পূর্ণ সাত্ত্বিক । অর্থাৎ মৎস্য-মাংস - পেঁয়াজরসুন রহিত
৩। উপনয়নের দিন সকালে বা আগে অবশ্যই ক্ষৌরকর্ম করতে হবে । যদি উপনয়ন গ্রহণকারী শিশু হয় তবে চুল - নখ কাটতে হবে । যদি বয়স বেশী হয় বা উপনয়ন কেউ আগে না নিয়ে থাকে তারা চুল -দাড়ি কেটে আসবে । যারা শিখা রাখবেন তারা আগে থেকে সেভাবেই চুল কেটে আসবেন ।
৪। উপনয়নের আগে বেশ কিছুটা সময় অভুক্ত অবস্থায় থাকতে হয় । এই সময়ে তারা সামান্য আহার করে নিতে পারে যেন পরবর্তীতে মনসংযোগে ব্যাঘাত না ঘটে । এসময় লবণ- ঝাল জাতীয় খাদ্যাদি পরিহার করতে হবে । মিষ্টান্নজাতীয় খাদ্যগ্রহণ মহর্ষি দয়ানন্দ সরস্বতী বিহিত করেছেন ।
৫। উপনয়নে উন্মুক্ত গাত্রে যজ্ঞোপবীত ধারণ করতে হবে । এজন্য চাদর বা উত্তরীয় আবরণ হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে ।
৬। পরিধেয় বস্ত্র অবশ্যই ধুতি হবে নিম্নাংশে । বিনা সেলাইয়ের পড়া শ্রেয় । উগ্র প্রসাধনী পরিত্যাজ্য ।
৭। উপনীতের শুদ্ধ সাত্ত্বিকহারী হওয়া বাঞ্ছনীয় ও বাধ্যতামূলক । বেদাদিতে প্রদত্ত নিষিদ্ধ আহার, ধূম্রপান, সপ্ত মর্যাদার উলঙ্ঘন ইত্যাদি আসক্ত ব্যক্তি উপনয়ন গ্রহণের যোগ্য নয় ।
৮। যারা কিন্তু নির্ধারিত বয়সের পরে উপনয়ন গ্রহণ করছেন তারা পূর্বদিন সংযম পালন করবেন অবশ্যই ।
৯। নির্ধারিত বয়সের পরে যারা উপনয়ন নিচ্ছেন তারা প্রায়শ্চিত্ত স্বরূপ পূর্ব ৩ দিন প্রত্যহ গায়ত্রী মন্ত্র জপ করবেন । 
 
 
  • শ্রাবণী উপাকর্ম - 



 

 

🔥উপনয়ন সংস্কার পরবর্তী পালনীয় বিধি 🔥

অনেকেই জানতে ইচ্ছুক বা দ্বিধায় আছেন যে উপনয়নের পরে নিত্য কর্তব্য কি । তা পয়েন্ট আকারে নিচে দেওয়া হল -
➡১. প্রত্যহ দ্বিসন্ধ্যা উপাসনা । ব্রহ্মে -শাস্ত্রে - দেবে ভক্তি রাখা ।
➡২. সাত্ত্বিক আহার (প্রচলিত বাংলায় নিরামিষ। মাংসাদি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। সপ্তমর্যাদার অনুকূলে মদ্য-অক্ষক্রীড়াদি-অবৈধ যৌন সংসর্গ অবশ্য বর্জনীয় )
➡৩. যজ্ঞোপবীত(পৈতা) ধারণ। শ্রাবণী উপাকর্মে যজ্ঞোপবীত পরিবর্তন ।
➡৪. শিখা ধারণ ( সমর্থ না হলে মুণ্ডন, জটা কিংবা চুল শালীনতা অনুযায়ী ছোট রাখা)
➡৫. নিয়মিত বেদাদি শাস্ত্র , আর্ষ গ্রন্থ স্বাধ্যায় করা।
➡৬. পিতামাতাদি পঞ্চদেবতার পূজা ।
➡৭. প্রত্যহ পঞ্চমহাযজ্ঞ পালন । সর্বাত্মক চেষ্টা করা
➡৮. বেদ ও পরমেশ্বরের বাণী প্রচারের মাধ্যমে সত্য প্রচার করে জাগতিক ও আধ্যাত্মিক উন্নতি সাধন। বেদ প্রচারে সর্বোচ্চ সচেষ্ট থাকা ।
➡৯. সপ্তমর্যাদা পালন । 
➡১০. ধর্মের ১০ লক্ষণ নিজের আচারে প্রস্ফুটিত করা । 
 
💥 সর্বোপরি জাত-পাত ছ্যুৎমার্গের সম্পূর্ণ বিলুপ্তি ঘটিয়ে সনাতন ধর্মকে বিশ্বের শ্রেষ্ঠাসনে পুনঃস্থাপন করা

No comments:

Post a Comment

Pages