ঋষি কে ? ঋগ্বেদের আলোকে জানুন - অগ্নিবীর

ঋষি কে ? ঋগ্বেদের আলোকে জানুন

Share This

 


✅ ঋষি কে ❓
 
  বেদমাতা জানাচ্ছেন - 
 
প্রত্যর্ধির্যজ্ঞানামশ্বহয়ো রথানাম্ ।
ঋষিঃ স যো মনুর্হিতো বিপ্রস্য যাবয়ৎসখঃ ॥
ঋগ্বেদ ১০।২৬।৫ 
 
অনুবাদঃ (ঋষিঃ সঃ) তিনিই ঋষি (যঃ) যিনি (যজ্ঞানাং প্রতি অর্ধিঃ) যজ্ঞসমূহের প্রতিপাদক , যজ্ঞের ন্যায় শুদ্ধ - পবিত্র ও নিষ্পাপ (রথানাম্ অশ্ব-হয়ঃ) যে রথ = জীবনরথের প্রেরণাদাতা , শীঘ্র সঞ্চালক, শুভকর্মের প্রাণস্বরূপ, (মনুঃ হিতঃ) যিনি মানবমাত্রের শুভাকাঙ্খী ও কল্যাণকামী (বিপ্রস্য সখঃ) যিনি জ্ঞানী, বুদ্ধিমান ও ধার্মিক মানবের সখা , (যাবয়ৎ) যিনি সর্বদুঃখের দূরকারী । 
 
☑️ বিভিন্ন শাস্ত্রে ঋষি শব্দের তাৎপর্য ও সংজ্ঞায়ন করা হয়েছে । বেদে ঋষি শব্দের উক্ত পরিভাষা অদ্ভুত, অপূর্ব ও অনুপম । ঋষির লক্ষণকে আমরা নিম্নোক্তরূপে চিহ্নিত করতে পারি - 
 
১। যজ্ঞ = শুভকর্মের সম্পাদক, যজ্ঞের মতই পবিত্র ও শুদ্ধ । যজ্ঞ বৈ শ্রেষ্ঠকর্মম্ ।
২। প্রেরক = ঋষি সাধারণ মানবকে বেদোক্ত পথে চলতে সহায়তা করেন, তাকে নীতি ও নৈতিকথার পথে ধাবিত করেন । কখনোই তাকে ভ্রান্তিতে ফেলেন না ।
৩। শুভাকাঙ্খী = ঋষি সর্বভূতে সমদর্শী হন । তার কাছে কোন ভেদাভেদ নেই । তিনি চান সকলেই যেন কল্যাণ ও সুখ লাভ করে ।
৪। ঋষি মাত্রেই বুদ্ধিমান, জ্ঞানী হবেন । কেননা শাস্ত্রসমূহকে মন্থন করে তিনি অমৃততত্ত্ব আস্বাদন করেছেন । তিনি কোন মানবের শত্রু নন । বরং তিনি তাদের মনের অন্ধকারকে বিনষ্ট করে পরমবন্ধুর ন্যায় কাজ করেন ।
৫। উক্ত বন্ধুর ন্যায় হিতকামী বলেই তিনি সাধারণের দুঃখ দূর করতে সচেষ্ট থাকেন ।
সন্দর্ভঃ বেদ সৌরভ - স্বামী জগদীশ্বরানন্দ সরস্বতী
বাংলাদেশ অগ্নিবীর
সত্য প্রকাশে নির্ভীক সৈনিক

No comments:

Post a Comment

Pages